Releases

নিষিদ্ধ ফল-দেবজ্যোতি ভট্টাচার্য

দশটি বসন্তকাল। কত দীর্ঘ সময়! তাদের যৌথ গুহাটির সামনে সে পা দুটি ভাঁজ করে বসেছিল। জায়গাটি নীরব। প্রথম বসন্তের বাতাসে শীতের মৃদু কামড়। সময় তার ওপরে বিশেষ ছায়া ফেলতে পারেনি। সেই আগেরই মতো সতেজ, সুন্দর রয়ে গেছে ইবা। অথচ তালাই তো আর সুন্দর নেই। তাকে দেখলে বৃদ্ধা মনে হয়। তার চামড়ায় বয়সের কুঞ্চন। তার পেটটি সর্বদাই উঁচু হয়ে থাকে কোনও এক অজ্ঞাত রোগের প্রকোপে। দশ বছরে আটটি সন্তান হলে এইরকমই হয়। মনে মনে নিজের সঙ্গে তালাইয়ের শরীরের তুলনা করে একটা বিকৃত আনন্দ হচ্ছিল ইবার। অথচ, হৃদয়ের গভীরে সে তালাইকে হিংসা করে। তীব্র, বিষময় ঈর্ষা! তালাইয়ের দু’দুটি ছেলের পিতা তার ঈশির।...

Continue Reading →

পাখিদের সমস্ত সাজ-তাপস কুমার লায়েক

মাঝে মাঝে কেউ কেউ প্রশ্ন করেন না, কোনও নির্জন দ্বীপে নির্বাসনে গেলে কোন বইগুলো নিয়ে যাবে সঙ্গে?  ২-৩টে কবিতার বই নিয়ে অবশ্যই যাওয়া উচিত। তালিকায় যে বইটা যে কোনওদিন থাকবে, সেটা হল তাপস কুমার লায়েকের 'পাখিদের সমস্ত সাজ'। তাপসদার (কবির সঙ্গে পরিচয়ের মওকা পাইনি এই বইয়ের কবিতাগুলোর বাইরে, তবুও 'তাপসদা'... বড় আপনজন সে) কবিতা পড়তে পড়তে মাঝে মাঝেই ভাবি, অগ্রন্থিত কত কবিতা বাইরে রয়ে গেল। পড়ার সুযোগ হল না। অকালপ্রয়াত এই কবিকে পাঠক মনে রাখলেন না দেখে আক্ষেপও হয়। যাই হোক, 'পাখিদের সমস্ত সাজ' বইটিতে আছে সারেঙ ও ব্যালেরিনা জল, তুমি এই মহাদেশ, বৃষ্টি ও তামাকের ঘর, নাও, L14B কবিতা...

Continue Reading →

রূপকথার রাজকন্যা-ঈশানী রায়চৌধুরী(টগবগ উৎসব সংখ্যা)

ফিঙে তখন মওকা বুঝে দাদুর হাত ধরে ঝুলে পড়ল। চিরকালই তো এই খুদে মেয়ে ঘ্যানঘ্যান করতে এক্সপার্ট। অতিষ্ঠ হয়ে শেষে জগুবাবুর বাজার থেকে একটা স্টেগোসরাসের ছানা নিয়ে এল দাদু। দেশলাইয়ের বাক্স করে। ছোট্ট মাথা, শরীরটা তুলনায় বড়, লেজটা চিমড়েপানা। কিন্তু পিঠে ছোট্ট ছোট্ট কাঁটা আর পাত কই? দাদু বলেছিল, বড় হলে হবে। একটু ঘিয়ে আর বাদামি চেহারা। ফিঙে একটু খুঁতখুঁত করেছিল বটে মাথাটা কেমন ছোট বলে, দাদু বলল, “ছোট মাথাই ভালো। বুদ্ধি কম হলে তাড়াতাড়ি সে জন্তু বশ হবে, কারণ ছোটদের তো এমনিতে কেউ ধর্তব্যের মধ্যেই আনে না।” পেছনের বারান্দায় রাখা হবে ওকে। ওদিকে দু’ধাপ সিঁড়ি পেরোলেই ফিঙেদের ভাড়া বাড়িটার...

Continue Reading →

বিশ্বাসঘাতক-প্রবীরেন্দ্র চট্টোপাধ্যায়(টগবগ উৎসব সংখ্যা)

চল্লিশের উত্তাল বার্লিন, ঘনিয়ে আসছে রুশো-জার্মান যুদ্ধ। তারই মধ্যে বার্লিন টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটিতে নিজের পি-এইচ-ডি নিয়ে ব্যস্ত গোরা মিত্তির। ওয়েলিংটন রোডের অনাথ আশ্রম থেকে বার্লিনের প্রথিতযশা বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষার্থে আসা, নাটকীয় ঘটনা সন্দেহ নেই। কিন্তু চল্লিশের বার্লিন গোরার জীবনে নিয়ে আসছে আরও নাটকীয় মুহূর্ত। গোরা বার্লিনের ইন্ডিয়ান ইন্ডিপেন্ডেস লিগের সদস্যও বটে, প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় থেকেই যে দল অবিরাম কাজ চালিয়ে যাচ্ছে ভারতবর্ষকে ব্রিটিশমুক্ত করতে (যে দলের প্রতিষ্ঠাতা খোদ মানবেন্দ্রনাথ রায়)। কিন্তু দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের দামামা গভীর সমস্যা নিয়ে এসেছে ইন্ডিয়ান ইন্ডিপেন্ডেস লিগের জন্য -- সুভাষ বোসকে জার্মানি কোনও রকম সাহায্য না দিয়েই ফিরিয়ে দিয়েছে। এবং শুধু তাই নয়, আলেকজান্ডারপ্লাটজের বাড়িতে গুপ্ত আততায়ীর হাতে...

Continue Reading →

দারুণ আল কিতাব-হারুণ আল রশিদ

হারুণ আল রশিদ, না, ইনি বাগদাদের খলিফা নন, কিন্তু খলিফাগিরিতে ইনি কম যান না। টুক করে ওঁর একটা লেখা পড়ে নেওয়া যাক। বইয়ের নাম 'দারুণ আল কিতাব'।  সৃষ্টিসুখের স্টোরে অর্ডারের লিংক -- https://goo.gl/wye6TK ==================== সুজিত ফিলিম বানায়। শখের অবশ্যই। এমনিতে তো চাকরি করে ও। শান্তনুর অফিসে। ওর ফিলিমগুলো দিনে দিনে ভালো থেকে আরও ভালো হচ্ছে। হওয়ারই কথা। লেগে থাকলে... পাগল ছেলে। মুখে নির্মল হাসি। বোধবুদ্ধি নেই বিশেষ... মানে সাধারণ বোধবুদ্ধি। সেটাও বেশ মজার। ওর ফিলিমগুলো সব ইউটিউবের জন্য করে ও। নিজের টাকায়। দু-তিন হাজার টাকার বাজেটের ভিতর। লোকে দেখলেই খুশি। গোড়ার দিকেরগুলো আমার তেমন ভালো লাগত না... কিন্তু ওই... দিন-দিন ভালো...

Continue Reading →

গুচ্ছ খোরাক-সংহিতা মুখোপাধ্যায়

সংহিতা মুখোপাধ্যায়ের 'গুচ্ছ খোরাক' বই থেকে 'সুকন্য বৃত্তান্ত' গল্পটির অংশবিশেষ। প্রাপ্তিস্থান -- https://goo.gl/wYkNMj ================================================ সুকন্যা সত্যিই ভালো মেয়ে। তার মা বলেন, “ওকে কোনওদিন বলতে হয়নি ‘পড়তে বোস।’ কোনওদিন কোনও বায়না ছিল না ওর। যা খেতে দিয়েছি, তাই খেয়েছে। যে জামা পরতে বলেছি, তাই পরেছে। ফ্যাশন নিয়ে মোটে মাতামাতি ছিল না ওর...” তার বাবা বলেন, “মেয়েটা বড়ো ঘরকুনো, মুখচোরা ছিল। তাই লাইব্রেরিতে মেম্বার করে দিয়েছিলাম। তাও মেয়েটা অমিশুক, চুপচাপ রয়ে গেল।” সেই সুকন্যা ভালোই আছে। বিগড়েও যায়নি, খারাপও হয়নি; একটুও না। আসলে সুকন্যা খারাপ হতে পারে না। এটাই তার গলতি। সেই যে ‘ভালোতে মন্দতে মিশিয়ে মানুষ’ বলে না, সুকন্যারও তাই। সে সত্যিই...

Continue Reading →

ফিসফাস কিচেন-সৌরাংশু

না, রেসিপির বই নয়, এটা একটা খাদ্যসফর। খাবারের ইতিহাস-ভূগোল-বিজ্ঞান-অঙ্ক সব তুলে এনেছেন লেখক। শুরু হচ্ছে চা-কফি-শিঙাড়া-চপ দিয়ে। তারপর? মেনকোর্সের শুরুতেই বিরিয়ানি। তারপর ইলিশ, চিঙড়ি থেকে শুরু করে আমাদের রোজকার ছ্যাঁচড়া, চচ্চড়ি, ঘণ্ট, আলুপোস্ত এসবও ব্রাত্য নয়। সব্বাই হাজির। আছে লঙ্কা নিয়েই আলাদা একটা চ্যাপ্টার। তারপর লেখক আমাদের টেনে নিয়ে যাচ্ছেন গণ্ডির সামান্য বাইরে -- কাশ্মিরী রান্না, দক্ষিণী আমিষ রান্না আর সিলেটি রান্না। আর শেষে চকোলেট, পায়েস। কিন্তু এভাবে শুধু সূচিপত্র আউড়ে গেলে এ বইয়ের কিছুই বোঝা যায় না। কারণ বইয়ের নাম 'ফিসফাস কিচেন'। মানে ফিসফাসের সেই মজলিশি স্টাইলে বলা হচ্ছে নানা খাদ্যের হাঁড়ির কথা। সে কোন দেশ থেকে এল, কেমন...

Continue Reading →

একবুক জোনাকি পাতা-অতনু প্রজ্ঞান বন্দ্যোপাধ্যায়

একজন মানুষ নিজের সঙ্গে কথা বলছেন। নিরন্তর দ্বন্দ্ব, কৌতূহল, আত্মসমালোচনা -- একের পর এক ফুটে উঠছে একটা ক্যানভাসে, নিজের যাত্রাপথকে আমাদের সঙ্গে ভাগ করে নিচ্ছেন। গন্তব্যে পৌঁছানোর থেকেও বেশি আগ্রহী তিনি পথের চারপাশে ছড়িয়ে থাকা হাজার বিস্ময়ে। অতনু প্রজ্ঞান বন্দ্যোপাধ্যায়-এর গদ্য সংকলন 'একবুক জোনাকি পাতা' এক আত্ম-উন্মোচনের জার্নি। লেখকের প্রথম বই 'এভাবেও ফিরে আসা যায়' যেমন বহু পাঠককে জীবনের দিকে ফিরে আসার ডাক দিয়েছিল, তেমনই এই বই পাঠককে নিজের ভেতর থেকে বাইরে তাকানোর হাতছানি দেবে। সৃষ্টিসুখ প্রকাশনের এই বইটি প্রকাশিত হচ্ছে কলকাতা বইমেলা ২০১৭-য়। একবুক জোনাকি পাতা অতনু প্রজ্ঞান বন্দ্যোপাধ্যায় মূল্য - ১২৫ টাকা প্রচ্ছদ - রোহণ কুদ্দুস প্রি-অর্ডারের লিংক...

Continue Reading →

প্রতিবেশীর বিড়ালের সঙ্গে ভাব জমানোর সহজ উপায়-দোগন পদ্দিস

বিড়াল আপনার মুলোর তরকারির ভাগ পেয়েছে? সাবধান! একঘরে রাত কাটাবেন না। বিড়ালের থেকে আত্মরক্ষার এমন অজস্র টিপস্‌ রয়েছে মাত্র এক ক্লিক দূরত্বে। সৌরাংশু সিংহ আরো যোগ করেছেন-দোগন পদ্দিস একটি দু পেয়ে অলপ্পেয়ের নাম। ক্ষণজন্মা অলপ্পেয়ে। কথায় বলে না বোলার যদি ক্যাপ্টেন হয় তাহলে হয় বেশি বোলিং করে অথবা কম! ইনি কম। প্রকৃত ক্যাপ্টেনের মতো পিছন থেকে নেতৃত্ব দিতে ভাল বাসেন। কিন্তু তাতে তার প্রতি ভালবাসা একটুও কমে না আমার। দোগন পদ্দিস রচিত 'প্রতিবেশীর বিড়ালের সঙ্গে ভাব জমানোর সহজ উপায়

Continue Reading →

তপন সিংহ — সার্বিক চলচ্চিত্র বীক্ষা: আবেশ কুমার দাস

প্রবন্ধের বই যে একেবারেই আমরা করিনি, তা নয়। কিন্ত এই বইটা সম্পর্কে আমার ভীতি ছিল আঞ্চলিক ভূগোলের মতো। এবং ড্রেসিং টেবলের ওপর রাখা ফিশবোলের মতো। একেবারে অজানা একটা বিষয়। তার ওপর কোথায় যে কী ভুল হয়ে যাবে টুক করে... Abesh যখন গত বইমেলায় জানিয়েছিল, ও তপন সিংহের ওপর প্রবন্ধের একটা বই প্রকাশ করতে চায়, আমি ঠিক কেমন রাজি হতে পারিনি। একজন চলচ্চিত্র পরিচালক, যিনি কিনা সেভাবে বাঙালির ঘরে ঘরে বন্দিত নন, যাঁর সিনেমার দৃশ্য নিয়ে কোনও মীম তৈরি হয় না, তাঁর ছবি নিয়ে কোনও পোস্টার বানানো হয় না, তাঁর ওপর একটা গোটা বই! সত্যজিৎ রায় বা ঋত্বিক ঘটককে নিয়ে লেখো না কেন বাপু?...

Continue Reading →